অনুষ্ঠান

July 22, 2017

‘সেক্যুলারিজম-এর নৃতত্ত্ব কেমন দেখতে হইতে পারে?’

‘সেক্যুলারিজম’ বিতর্কে অন্যতম প্রধান অবদান রাখা নৃবিজ্ঞানী তালাল আসাদ। যাকে আমরা ‘সেক্যুলার’ এবং ‘সেক্যুলারিজম’ বলে চিনি-জানি, তা আসলে কি স্থির নির্দিষ্ট? কালে কালে তার একই রুপ আর গুন ছিলো? না […]
October 28, 2017

ঔপনিবেশিকতা, নারীবাদ এবং সংহতির অনুশীলন

এই পাঠচক্র সিরিজের তৃতীয় পাঠ ২৮ অক্টোবর, শনিবার, বিকাল ৫টায়, সিবিএস কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তৃতীয় পাঠে আমরা পড়েছি চন্দ্রা মোহান্তির Feminism Without Borders–এর প্রথম চ্যাপ্টার “Under Western Eyes: Feminist Scholarship […]
January 14, 2017

দক্ষিন এশিয়ায় ‘আদিবাসী’ পরিচয়ের রাজনীতি; বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা

বাংলাদেশের সমাজের অন্যতম বেদনার নাম পরিচয়ের রাজনীতি। আদিবাসী, বাংগালী, হিন্দু, মুসলমান -সহ নানান পরিচয়ের সংঘাতের গণতান্ত্রিক সুরাহা এই রাষ্ট্রে কি হবে, কিভাবে হবে- তা নিয়ে গণতান্ত্রিক আলাপ-আলোচনা যে পরিমানে দরকার- […]
January 2, 2017

অনন্ত ঈদের দেশেঃ মাওলানা ভাসানীর রাজনীতি

মওলানা ভাসানীর ৯৬ বছর জীবনের বেশিরভাগ কেটেছে রাজনীতিতে। ব্রিটিশ উপনিবেশ বিরোধী সংগ্রাম থেকে শুরু করে শেষ জীবনে ফারাক্কা বাঁধের বিরুদ্ধে সংগ্রাম পর্যন্ত তার সমস্ত জীবন কেটেছে জালিমের বিরুদ্ধে লড়াই করে। […]

বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র নিয়মিতভাবেই রাজনীতি-অর্থনীতি-ইতিহাস-সংস্কৃতি বিষয়ক পাঠচক্র-আড্ডা-সামাজিক সংলাপ-বৈঠকি ইত্যাদির আয়োজন করে থাকে। সেসব অনুষ্ঠানে অংশ নিতে- কেন্দ্রের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে লক্ষ্য রাখুন

কেন্দ্রের ফেসবুক পেজ

দুর্নীতি কাকে বলে, কীভাবে হয়, কাদের মাধ্যমে, কার বা কাদের স্বার্থে, রাষ্ট্রের গঠনের সাথে, আইনের সাথে, উন্নয়নের সাথে দুর্নীতির সম্পর্ক কিরকম ইত্যাদি নানারকম দিক নিয়ে বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র আয়োজিত "দুর্নীতি, শাসনপ্রক্রিয়া ও রাষ্টগঠনঃ বাংলাদেশ ও বৈশ্বিক প্রেক্ষিত। মুশতাক খান-এর সাথে আড্ডা।" অনুষ্ঠানে আলোচনা করেছিলেন, ডঃ মুশতাক খান।

মুশতাক খান একজন বহুরৈখিকধারার (হেটেরোডক্স) অর্থনীতিবিদ। প্রাতিষ্ঠানিক অর্থনীতি, ‘দরিদ্র’দেশের অর্থনীতি, দক্ষিন এশীয় উন্নয়ন, শাসন প্রক্রিয়া এবং রাষ্ট্র গঠন, দূর্নীতি ও মক্কেলতান্ত্রিক (ক্লায়েন্টেলিস্ট) রাজনীতি , ভারতীয় উপমহাদেশ এবং দক্ষিন ও দক্ষিন পূর্বএশীয় দেশগুলির অর্থনৈতিক উন্নয়ন, শিল্পনীতি ও রাষ্ট্রের ভূমিকা ইত্যাদি বিষয়ে তিনি বিশ্বের অন্যতম প্রধান একজন তাত্ত্বিক। তার তাত্ত্বিক ও গবেষণামূলক কাজ বিশ্বব্যাপী আলোচিত এবং স্বীকৃত ।

সেই আলোচনা শুনতে ইউটিউবে সিবিএসের চ্যানেলে ভিজিট করুন।

আপনারা জানেন সিবিএস জনগণের দান-অনুদান-সহযোগিতায় কাজ করে। সিবিএসের তহবিলে ব্যাপক ঘাটতি রয়েছে। ফলে আপনাদের দান-অনুদান-সহযোগিতা ব্যাতীত সিবিএসের পক্ষে কাজ করে যাওয়া অসম্ভব।

নিয়মিত-অনিয়মিত সব ধরনের দানই আমরা সবসময় গ্রহণ করি। তবে শুধুমাত্র অনিয়মিত দানের উপর নির্ভর করে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের পক্ষে টিকে থাকা এবং কাজের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা অসম্ভব। তাই অনিয়মিত দানের পাশাপাশি আমাদের দরকার নিয়মিত অনুদান করার মতো কিছু শুভার্থী বা স্পন্সর সদস্য। সত্যি বলতে, ১৬ কোটি মানুষের দেশে এরকম কিছু মানুষ পেলেই বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্রের মারাত্মক তহবিল সংকট আর থাকে না, কেন্দ্র তার ন্যুনতম কাজ চালিয়ে যেতে পারবে।

বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্রের কাজকর্ম সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এসব লিঙ্ক ভিজিট করতে পারেনঃ
ইউটিউব চ্যানেলঃ www.youtube.com/channel/UCZthtPsc97lFQ2q9V1SJ-Bw
কেন্দ্রের কার্যক্রমের ছবিঃ www.facebook.com/pg/cbsbd/photos/;
ওয়েব সাইটঃ www.cbsbd.org
সিবিএস-এর কয়েকটা উদ্যোগঃ
সুন্দরবন আর্কাইভ: sundarbans.cbsbd.org/
উচ্ছেদ মহাফেজখানা : www.displacementarchive.info
নতুন পঞ্জিকা: www.notunponjika.com
‘দেশের অবস্থা’ প্রতিবেদন: cbsbd.org/resources/reports
সিবিএস জার্নাল: journal.cbsbd.org/

কেন্দ্রের স্পন্সর সদস্য হিসেবে যুক্ত থাকতে, কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগে থাকতে, কেন্দ্রের নিয়মিত আপডেট পেতে এই ফর্মটি পূরণ করে পাঠিয়ে দিতে অনুরোধ করিঃ docs.google.com/forms/d/1uXrFiCr5dE11CnU1nZuoj0kz2xxArev4e1WKKIozEc4

বিস্তারিত জানতে বা জানাতে আমাদের লিখতে পারেনঃ cbsdhaka@gmail.com ।

সকলের সহযোগিতা কামনা করি। ধন্যবাদ। সংহতি।
#দুর্নীতি, শাসনপ্রক্রিয়া ও রাষ্টগঠনঃ বাংলাদেশ ও বৈশ্বিক প্রেক্ষিত।। মুশতাক খান-এর সাথে আড্ডা। ১৫ জুলাই , শনিবার, ....
... See MoreSee Less

View on Facebook

14956416_993385387438971_4274928357452595727_n

বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র (সিবিএস) ২০১৩ থেকে একটি ন্যায়বিচারভিত্তিক ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের জন্য বুদ্ধিবৃত্তিক লড়াই করে যাচ্ছে। এ লড়াইয়ে সিবিএস সর্বজনের জন্য গবেষণা করছে, আয়োজন করছে জনগণের অংশগ্রহনে সংলাপ। কিন্তু এ কাজের জন্য সিবিএস টাকা-পয়সা পায় কোথা থেকে? উত্তর হলো জনগণের কাছ থেকে, আপনার কাছ থেকে। বন্ধু প্রতিম সংগঠনের কাছ থেকে। সিবিএস জনগণের কাছ থেকে টাকা নিয়ে জনগণের স্বার্থে কাজ করে। জনগণ না চাইলে বাংলাদেশের জন্য সিবিএসের বুদ্ধিবৃত্তিক লড়াই বন্ধ হয়ে যাবে। ন্যায় ও গণতন্ত্রের এ লড়াইয়ে সিবিএসের পাশে আপনাকেও চাই। আপনার যে কোন ধরনের দান- অনুদান-সহযোগিতা আমরা সানন্দে গ্রহণ করব। নগদ, বিকাশ, ব্যাঙ্ক একাউন্ট কিংবা অন্য কোন মাধ্যমেও অনুদান দিতে পারেন। অনুদান মাসিক, ত্রৈমাসিক, ষাণ্মাসিক, বাৎসরিক এবং এককালীন ভিত্তিতে দেয়া যাবে। টাকাব্যতীত অন্য অনুদান আলোচনা সাপেক্ষে প্রদেয়। বিশেষ দান/অনুদান( যেমন স্মারক বৃত্তি, স্মারকবক্তৃতা ইত্যাদির জন্যে) আলোচনা সাপেক্ষে প্রদেয় । যোগাযোগঃ ইমেইলঃ cbsdhaka@gmail.com ওয়েব সাইটঃ www.cbsbd.org ফেসবুকঃ www.facebook.com/cbsbd ফোনঃ +৮৮ ০১৭৪৬৬১৩৫৪৭ দেশের ভেতর থেকে দান-অনুদান পাঠাতেঃ ব্যাংক একাউন্টঃ সেন্টার ফর বাংলাদেশ স্টাডিজ ( সিবিএস) চলতি হিসাব নং ১২৬ ১১০ ২৫০৮৮ ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড, এলিফ্যান্ট রোড শাখা, ঢাকা। আপনি-আমি-আমরা মিলেই গড়তে পারি নতুন সমাজ, আমাদের বাংলাদেশ, আমাদের ভবিষ্যৎ ! আসুন, তাকে সম্ভব করে তুলি!

কেন্দ্রের বিভিন্ন কার্যক্রমের ছবি


পুস্তক ও প্রকাশনা

সিবিএস কি?

বিউপনিবেশায়নের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজ গঠনের কাজে নিয়োজিত সমাজভিত্তিক চিন্তক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র( Center for Bangladesh Studies-CBS)। গবেষণা , প্রকাশনা, সংলাপ, সামাজিক শিক্ষাসহ নানামুখী উদ্যোগের মাধ্যমে মুক্তি ও শান্তির দেশ-দুনিয়া নির্মানে জরুরী অনুঘটকের কাজ করছে কেন্দ্র। ট্রাস্ট আইনে নিবন্ধিত এই প্রতিষ্ঠান চলে সামাজিক অনুদানে, জনগণের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় । জৈবনিক অংশ হয়ে সমাজ পরিবর্তনের অনুশীলনে যুক্ত নবীন-প্রবীন একদল সমাজকর্মীর স্বেচ্ছাশ্রমে চলে কেন্দ্রের কাজ। এই বিপুল কর্মযজ্ঞে আপ্নিও সামিল হোন!।

কেন্দ্রের কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে গবেষণা ও সামাজিক সংলাপ; পাঠচক্র/সামাজিক শিক্ষা; নথিকরণ ও বহুশাস্ত্রীয় প্রদর্শনী ; গ্রন্থ ও গবেষণাগার; তথ্যচিত্র নির্মান ; বক্তৃতা সিরিজ ; আলোচনা/সেমিনার; সাময়িক পত্র/জার্নাল প্রকাশনা; বই/পুস্তক/ পুস্তিকা প্রকাশনা ইত্যাদি।


# Book Cover Bisthapon (CBS)

বিস্থাপন।। উচ্ছেদ ও ন্যায্যতা প্রশ্নে প্রাথমিক পাঠ

বাংলাদেশসহ সারা দুনিয়ায়- বিস্থাপনের বিপুল ঘটনা ঘটে চলেছে। যার প্রধান কারণ বৈষম্যমূলক অগণতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি, আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক রাষ্ট্র ও বিশ্বব্যবস্থা- যার মধ্যে উপনিবেশ/ঔপনিবেশিক লুন্ঠন ও শাসনব্যবস্থা, পুঁজিতান্ত্রিক –পুরুষতান্ত্রিক আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থা ও প্রতিষ্ঠান, নয়া-উদারনীতিবাদী, প্রবৃদ্ধিবাদী উন্নয়ন মডেল অন্যতম। কেন এবং কীভাবে মানুষ এবং প্রাণ-প্রকৃতির বিস্থাপন ঘটে। কোন প্রক্রিয়া বা কোন ধরণের চিন্তা ও সস্কৃতি এবং আর্থ-সামাজিক রাষ্ট্রব্যস্থা কীভাবে বিস্থাপনের মতো বিপর্যয় সমাজে এবং দুনিয়ায় নিয়ে আসে। তার সাথে গণতন্ত্র ও ন্যায্যতার প্রশ্ন কীভাবে যুক্ত, কী করে আমরা বিস্থাপনের অন্যায্যতা দূর করতে পারি- সে বিষয়ে জরুরী আলাপের দিকগুলি সম্পর্কে প্রারম্ভিক আলাপ তোলা, সমাজে এ নিয়ে গণতান্ত্রিক আলাপ-আলোচনা এবং মতামত গড়ে তোলার প্রক্রিয়ায় ভূমিকা রাখবে- এসব চিন্তা মাথায় রেখে এই পুস্তিকা রচনা ও প্রকাশ করা হলো। বইয়ের প্রাপ্তিস্থান- সংহতি বইঘর, কনকর্ড এম্পোরিয়াম, কাটাবন। সন্ধিপাঠ, আজিজ সুপার মার্কেট। জনান্তিক, আজিজ সুপার মার্কেট। দামঃ ৫০ টাকা।
13720762_961122433996467_359223146_n

কর, বৈষম্য ও উন্নয়নের চ্যালেঞ্জ/ কর ন্যায্যতা সম্পর্কে একটি সহজ পাঠ

সমাজ ও রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক বিকাশে অর্থনৈতিক বৈষম্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কর ব্যবস্থা কি ভূমিকা রাখে, সেটাই এই পুস্তিকার মূল আলোচ্য বিষয়। বাংলাদেশে সুষম সমাজ বিকাশের সংগ্রামে নিয়োজিত কর্মীদের কাজে লাগতে পারে এই বিবেচনায় বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র এবং একশন এইড বাংলাদেশ এই পুস্তিকা প্রণয়ন ও প্রকাশ করেছে। বৈষম্য বিরোধী সহযোদ্ধাদের কাজে লাগলে আমাদের শ্রম সার্থক হবে। পুস্তিকাটি পাওয়া যাবে 'সংহতি বইঘর', কনকর্ড এম্পোরিয়াম, কাঁটাবন , ঢাকা; এবং বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র কার্যালয়ে। দামঃ ৮০
13721007_1261722897201357_827801812_n

পারমাণবিক বিদ্যুৎ সমস্যা- রুপপুর প্রকল্প ও বাংলাদেশ

''পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যবস্থা কতটা লাভজনক, কতখানি আমাদের দেশীয় পরিবেশ বান্ধব, এর চেয়ে ভাল এবং সর্বদিক দিক দিয়ে লাভজনক অন্য কোন বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যবস্থা আছে কি-না সে তথ্য জানার অধিকার জনগণের আছে। নাগরিকদের এই বিষয়ে সম্যক ধারণা পেতে সহযোগিতা করার জন্য তথ্য এবং বিশ্লেষণ সমৃদ্ধ এই পুস্তক। এই ধরনের উদ্যোগ প্রশংসনীয়। '' - ডঃ আসমা বেগম। সহকারী অধ্যাপক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ইন্ডিপেন্ডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ''এই বিষয়ে তথ্যসমৃদ্ধ বিতর্কের জন্য মানুষকে শিক্ষিত করে তোলার চেষ্টায় প্রশংসনীয় একটি উদ্যোগ। আমাদের জননীতির গুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়ে ভাল-মন্দ, লাভ-ক্ষতিসহ সার্বিক চিত্র তুলে ধরাটা জরুরি বলে আমি মনে করি। '' - তৌফিক ইমরোজ খালিদী । প্রধান সম্পাদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ''... জনগণের জানবার অধিকার আছে, তার নামে, তার উন্নয়নের কথা বলে, তার ঘাড়ে ঋণের বোঝা চাপিয়ে, তার পানি স¤পদকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে, তার ভবিষ্যৎকে বিপদাপন্ন করে সরকার কী করছে, কেন করছে। এই পুস্তিকা এরকম একটি উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে আমাদের জানাচ্ছে। এই দেশ আমাদের, এই দেশের জীবন ও স¤পদ নিয়ে সরকার যা খুশি তাই করতে পারে না। দেশ-বিদেশের লুটেরাদের মুনাফার সীমাহীন লোভ মেটাতে গিয়ে আমরা আমাদের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ ধ্বংস করতে দিতে পারি না। '' -আনু মুহাম্মদ, অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। সদস্যসচিব, তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ-বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি
14058392_1231393816903271_2140970910_n

প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র

Democracy has many forms. This handbook introduces the ways in which a system of election-based direct democracy can support and give strength to democratic systems. The book reflects on models of direct democracy all around the world – in Hungary, Switzerland, Uganda, the United States (Oregon), Uruguay and Venezuela. This book is intended both to enrich thought and discussion about the Bangladeshi society and state’s culture of democracy and encourage those who are interested to join the struggle to build a democratic society and state. দামঃ ৩০০ টাকা।
12679131_969193946530453_719594095_n

পারমাণবিক অস্ত্র কেন এখনি নিষিদ্ধ করা উচিৎ

সম্প্রতি বাংলাদেশ আবার আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক কৌশলগত রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এর একটি কারণ এই দেশের ভৌগলিক অবস্থান, আরেকটি কারণ এই দেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা। মুক্তির সংগ্রামের দীর্ঘ ধারাবাহিকতায় মুক্তিযুদ্ধ করে আমরা আমাদের স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছি। সে যুদ্ধ ছিল আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়া যুদ্ধ। গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করে আমাদেরকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু যুদ্ধ আমাদের ব্যবসা নয়, বাণিজ্য নয়, মুনাফার উৎস নয়। অপর জাতিসত্তা বা জনগোষ্ঠীকে দাবিয়ে রাখা, নিয়ন্ত্রণ করা বা অপরের দেশ-জমি-ভূখ- দখল করতে আমরা যুদ্ধ করিনি, সেটা আমরা সমর্থন করি না, আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাও সেটা নয়। আমরা বরং সকল জাতিসত্তা-জনগোষ্ঠীর আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারে বিশ্বাস করি। পারস্পরিক সহযোগিতা এবং সংহতির ভিত্তিতে একটা শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়ে তুলতে চাই। বাংলাদেশের জনগণের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাস এই আন্দোলনের অনুপ্রেরণা। সেই অনুপ্রেরণায় অনুপ্রাণিত হয়ে, বাংলাদেশকে যুদ্ধ এবং পরমাণু অস্ত্রমুক্ত বিশ্ব গড়ে তোলার আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে হলে আমাদের দরকার এই বিষয়ে সামাজিক, রাজনৈতিক এবং নীতিনির্ধারণী মহলে পর্যাপ্ত বোঝাপড়া এবং ঐকমত্য। সেই কাজে যৎসামান্য হলেও ভূমিকা রাখবে এই আশায় বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র এই প্রকাশনার উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু দুনিয়ার বাস্তবতা তেমন নয়। আধিপত্যবাদ, সম্প্রসারণবাদ, দখল এবং লুটপাটের জন্যে বিশ্বে ক্রিয়াশীল রয়েছে যুদ্ধ বাণিজ্য, সমরাস্ত্র শিল্প, মিলিটারি ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমপ্লেক্স। আমাদের পার্শ্ববর্তী দুইটি রাষ্ট্রÑভারত এবং পাকিস্তান নিজেরা পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী হয়েছে, মজুদ গড়েছে। এসব খবর পুরোনো, কিন্তু সমানভাবে আশঙ্কাজনক। আঞ্চলিক শান্তি এবং নিরাপত্তার জন্যে অস্ত্র প্রতিযোগিতা মোটেই সুখের খবর নয়, বরং দুশ্চিন্তার।
12408935_1028421433945548_1113755053_n

ফুকুশিমার ১০ শিক্ষা

২০১১ সালের মার্চে জাপানে প্রলয়ঙ্কারি সুনামি ও ভূমিকম্পের কারণে ফুকুশিমা দাঈচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে বিপর্যয় ঘটে। সেই বিপর্যয় পুরো জাপানসহ পুরো পৃথিবীকে নাড়িয়ে দিয়েছে। জাপানের জনগণ সেই বিপর্যয় মোকাবিলা করেছে, অভিজ্ঞতা লাভ করেছে। সেই অভিজ্ঞতা নিয়েই জাপানে একটি পুস্তিকা বের হয়। বাংলাদেশ অধ্যয়ন কেন্দ্র এই বইটি অনুবাদের কাজটি করেছে। বাংলাদেশের রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরী করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে তাই এই বই প্রাসঙ্গিক বলে আমরা মনে করছি। দামঃ ১০০ টাকা